পূরণ হলো না আবদুল কাদেরের শেষ ইচ্ছে

পূরণ হলো না আবদুল কাদেরের শেষ ইচ্ছে

 সবাইকে কাদিয়ে আজ সকালে না ফেরার দেশে পাড়ি জমান বরেণ্য অভিনেতা আবদুল কাদের। রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় সকাল ৮টা ২০ মিনিটে তিনি শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। ‘বদি’খ্যাত এই অভিনেতার মৃত্যুতে শোবিজ অঙ্গনে নেমে এসেছে শোকের ছায়া।

আবদুল কাদেরের মৃত্যুর পর তারই এক সহকর্মী, প্রকাশক ও অভিনেতা হাফিজুর রহমান সুরুজের কাছে জানা গেল, এই অভিনেতার শেষ ইচ্ছের কথা। তিনি জানান, আবদুল কাদের তার আত্মজীবনী নিয়ে একটি বই বের করতে চেয়েছিলেন।

সুরুজ বলেন, উনার শেষ ইচ্ছা ছিল, আত্মজীবনী প্রকাশ করার। উনি বলেছিলেন, “আমার জীবদদ্দশায় তুই বইটা বের করে দে।” এ কথা শোনার পর আমি একজন লোকও পাঠাতে চেয়েছিলাম তার কাছে। যে কিনা শুনে শুনে তার জীবনী লিখবে। কিন্তু সে মানা করে দেয়। এরপর সে নিজেই তার আত্মজীবনী লেখা শুরু করে দেয়।’

সবশেষ চলতি বছর ২০ আগস্ট হাফিজুর রহমান সুরুজের সঙ্গে কথা হয় আবদুল কাদেরের। সেসময় তিনি জানান, আত্মজীবনীর বেশ কিছু অংশ লিখে ফেলেছেন আবদুল কাদের। তার ইচ্ছে ছিল, এই বইমেলায় তা প্রকাশ করার। তবে শেষ ইচ্ছে পূরণের আগেই মৃত্যুকে কাছে টেনে নিলেন বরেণ্য এই অভিনেতা।

এর আগে গত ৮ ডিসেম্বর ভারতের চেন্নাইয়ের ভেলোর শহরের সিএমসি হাসপাতালে নেওয়া হয় আবদুল কাদেরকে। পরে ১৫ ডিসেম্বর প্যানক্রিসের (অগ্ন্যাশয়) ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার কথা জানা যায়। দেশে ফেরার পর ২০ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় রাজধানীর এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয় এ অভিনেতাকে। এরপর তার করোনা আক্রান্ত হওয়ার খবর পাওয়া যায়।

গত বৃহস্পতিবার রাত ১২টার দিকে অভিনেতা আবদুল কাদেরের শারীরিক অবস্থার অবনতি হওয়ায় তাকে করোনা ইউনিট থেকে হাসপাতালের নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) নেওয়া হয়।

হুমায়ূন আহমেদের লেখা ‘কোথাও কেউ নেই’ ধারাবাহিক নাটকে ‘বদি’ চরিত্রে অভিনয় করে তুমুল জনপ্রিয়তা পান আবদুল কাদের। এ ছাড়াও তিনি হুমায়ূন আহমেদের ‘নক্ষত্রের রাত’ নাটকে দুলাভাই চরিত্রেও দারুণ প্রশংসিত হন।

Post a Comment

Previous Post Next Post